মোটরসাইকেল কিনতে ‘ড্রাইভিং লাইসেন্স’ বাধ্যতামূলক, সরকারি সিদ্ধান্তে স্থগিতাদেশ

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: মোটরসাইকেল কেনার সময় ‘ড্রাইভিং লাইসেন্স’ থাকা বাধ্যতামূলক বলে ঘোষণা করেছিল রাজ্য সরকার। মঙ্গলবার কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি হরিশ ট্যান্ডন আগামী ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত সেই নির্দেশের উপর স্থগিতাদেশ জারি করেছেন।
৪ জুলাই রাজ্য ওই নির্দেশিকা জারি করে। রাজ্য পরিবহণ দপ্তর সেইসূত্রে রাজ্যের সব আরটিওকে (রিজিওনাল ট্রান্সপোর্ট অফিস) ওই নির্দেশ কঠোরভাবে পালন করার নির্দেশ দেয়। যা নিয়ে মোটরসাইকেল বিক্রেতা ও সম্ভাব্য ক্রেতাদের মনে নানা প্রশ্ন দেখা দেয়। কারণ, ড্রাইভিং লাইসেন্স না থাকলে দুই চাকার গাড়ি সরকারিভাবে নথিভুক্ত করা যাবে না বলে নির্দেশ দেওয়া হয়। সরকারি সূত্রে বলা হয়েছিল, কেন্দ্রীয় মোটর ভেহিকল আইন অনুসরণে এমন পদক্ষেপ করা হয়েছে।
পরবর্তীকালে তামিলনাড়ু সরকারও গত আগস্ট মাসে একইরকম পদক্ষেপ করে। কিন্তু, সেখানে গোড়াতেই পরিবহণ ব্যবসার সঙ্গে যুক্তরা প্রশ্ন তুলেছিলেন যে, ১৯৮৮ সালের কেন্দ্রীয় মোটর ভেহিকল আইনে এমন কোনও শর্ত দেওয়া নেই। বিষয়টি সেখানকার হাইকোর্টে পেশ করা হলে আদালত স্থগিতাদেশ জারি করে। এবার এখানেও আদালত একই পদক্ষেপ করল।
মোটরসাইকেল ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিরা এনিয়ে মামলা করায় রাজ্যের এসংক্রান্ত নির্দেশিকার অংশবিশেষের উপর এদিন স্থগিতাদেশ জারি করেছে হাইকোর্ট। ব্যবসার হাল এর ফলে আরও খারাপ হবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করে মামলাকারীদের তরফে বলা হয়, বাবা-মা হাজির থাকলে নাবালককে যদি মোটরসাইকেল বিক্রি করা যায়, তাহলে লাইসেন্স না থাকার কারণে কেন কোনও সাবালক তা কিনতে পারবেন না? শুনানি চলাকালীন বিচারপতি বলেন, পথ নিরাপত্তা জোরদার করতে প্রশাসন কঠোর অবস্থান নিতেই পারে। প্রয়োজনে আধুনিকতম প্রযুক্তি ব্যবহার করা যেতে পারে। ট্রাফিক পুলিস কঠোরভাবে প্রাসঙ্গিক আইন প্রয়োগ করতে পারে। কিন্তু, সরকারের এই সিদ্ধান্ত বিচার করার আগে সবপক্ষের বিস্তৃত বক্তব্য পেশ হওয়া দরকার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com